Nov 9, 2017
16 Views
Comments Off on সমাবেশের মৌখিক অনুমতি পেলো বিএনপি
0 0

সমাবেশের মৌখিক অনুমতি পেলো বিএনপি

জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে আগামী রোববারের সমাবেশ ঘিরে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে বিএনপি। রোববারের ওই সভায় বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন। সমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে ইতিমধ্যে ঢাকা এবং আশেপাশের কয়েকটি জেলার নেতৃবৃন্দকে সঙ্গে নিয়ে কয়েকদফা প্রস্তুতি সভা করেছে দলটি।

গতকালও বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে যৌথসভা করেছে বিএনপি। সমাবেশের আনুষ্ঠানিক অনুমতি এখনো না পেলেও গতকাল বিকালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল ও দলের প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশস্থল পরিদর্শন করেছেন। এসময় তারা সাংবাদিকদের জানান, পুলিশের কাছ থেকে সমাবেশ করার মৌখিক অনুমতি পাওয়া গেছে।

এদিকে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুলের সভাপতিত্বে এই যৌথসভায় রোববারের সমাবেশ সফল করা নিয়ে বিশদ আলোচনা হয়েছে। বিশেষ করে দীর্ঘদিন পর একটি সমাবেশ যেন সফল ও শান্তিপূর্ণভাবে শেষ করা যায় সে ব্যাপারে বিএনপির বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণের পাশাপাশি ঢাকার পার্শ্ববর্তী বিভিন্ন জেলা থেকেও যেন লোক সমাগম হয় সে জন্য সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ঢাকা মহানগরীর প্রতিটি থানা, ওয়ার্ড এবং ইউনিট নেতৃবৃন্দকেও একই নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে বৈঠক সূত্র জানিয়েছে।

পরে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, সুশৃঙ্খল ও শান্তিপূর্ণভাবে এই সমাবেশটি আমরা করতে চাই। এই সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন দলের চেয়ারপারসন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। এখন পর্যন্ত আমরা সমাবেশের অনুমতি পাইনি। তবে আমরা আশা করছি, ১২ তারিখের জনসভার অনুমতি যথাসময়ে দেয়া হবে। সোহরাওয়ার্দীতে জনসভা করতে সরকারের সহযোগিতা চেয়ে তিনি বলেন, আমরা আশা করি যে, এই জনসভাটি করার জন্য সরকার সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন। কারণ তারা সব সময়ই বলে থাকেন যে, তারা কোনো বাধা দেন না, তারা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেন, মানুষের ও রাজনৈতিক দলগুলোর মত প্রকাশে তারা স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন। গতকাল তাদের একজন নেতা বলেছেন যে, তারা বাধা দেননি এবং এই ধরনের সমাবেশে কোনো বাধা নেই। আমরা আশা করবো যে, তাদের এই কথাগুলো যেন সত্যে প্রমাণিত হয়।

গতকাল দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশকে সফল করতে বিএনপি ও এর বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন এবং ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলাসমূহের নেতৃবৃন্দের এক যৌথসভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন বিএনপি মহাসচিব। এসময় দলের ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমানউল্লাহ আমান, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, কেন্দ্রীয় নেতা হাবিব-উন নবী খান সোহেল, হারুনুর রশীদ, শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আবদুস সালাম আজাদ, ঢাকা জেলার হাজী আবু আশফাক, মুন্সীগঞ্জের আবদুল হাই, কামরুজ্জামান রতন, মানিকগঞ্জের মইনুল ইসলাম শান্ত, গাজীপুরের ফজলুল হক মিলন, কাজী সাইয়্যেদুল আলম বাবুল, হাসানউদ্দিন সরকার, নরসিংদীর খায়রুল কবীর খোকন, নেসারউদ্দিন প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। যৌথসভায় মুক্তিযোদ্ধা দল, মহিলা দল, যুবদল, ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, ওলামা দল, শ্রমিক দল, কৃষক দল, তাঁতী দল সহ ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে মির্জা আলমগীর বলেন, ৭ই নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস আমরা ঠিকভাবে পালন করতে পারিনি। কারণ কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি কনফারেন্সের (সিপিসি) কথা বলে আমাদেরকে অনুমতি দেয়া হয়নি। আমরা আশা করবো যে, সরকার এই সমাবেশের অনুমতি যথাসময়ে দেবেন। আমাদের যে গণতান্ত্রিক অধিকার, সেই অধিকার প্রয়োগ করার ক্ষেত্রে সরকারের কাছ থেকে আমরা সেই সহযোগিতা পাবো।

বিভাগ:
রাজনীতি

Comments are closed.