Nov 15, 2017
29 Views
Comments Off on টাকার অভাবে ফিকে দীপ্রর স্বপ্ন
0 0

টাকার অভাবে ফিকে দীপ্রর স্বপ্ন

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ভর্তি পরীক্ষায় এ বছর মেধাতালিকায় ৭৫৬তম হয়েছেন দীপ্র বিশ্বাস। তাঁর ইচ্ছে প্রকৌশলী হওয়ার। কিন্তু পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলেও ভর্তির টাকা জোগাড় করতে না পারায় এখন সেই স্বপ্ন ফিকে হয়ে যাচ্ছে।

দীপ্র বিশ্বাসের (১৯) বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার দোগাছি গ্রামে। তাঁর বাবার নাম প্রদীপ বিশ্বাস, মা কল্যাণী বিশ্বাস। দুই ভাইবোনের মধ্যে দীপ্র ছোট। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন তিনি। বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় তাঁর রোল নম্বর ৫৫১৬৫। আগামী মাসের মাঝামাঝি সময়ের মধ্যেই বুয়েটে ভর্তির কাজ শেষ হবে। কিন্তু এখন পর্যন্ত তাঁর ভর্তির টাকা জোগাড় হয়নি।

দীপ্রর বাবা প্রদীপ আগে ভ্যান চালাতেন। সেই সঙ্গে চলত দিনমজুরের কাজ। কিন্তু হঠাৎ করেই একদিন ভ্যান নষ্ট হয়ে যাওয়ায় বাড়তি রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে যায়। এখন কুলি-মজুরের কাজ করে কোনোভাবে সংসার চালান প্রদীপ। ছেলের বুয়েটে ভর্তির টাকা জোগাড় করা তাঁর পক্ষে অসম্ভব।

আর্থিক অবস্থা খারাপ থাকায় স্কুল থেকেই দীপ্রকে বিনা বেতনে পড়াতেন শিক্ষকেরা। এসএসসি পাসের পর এলাকার মানুষের সহায়তায় নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজে ভর্তি হন দীপ্র।

নড়াইলের বাঘারপাড়া ডিগ্রি কলেজের পদার্থবিজ্ঞানের সহকারী অধ্যাপক অসীম চক্রবর্তী দীপ্রকে পড়িয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, বুয়েটে পড়ার স্বপ্ন দীপ্রর। কিন্তু ভর্তিসহ অন্যান্য খরচের জন্য যে অর্থের প্রয়োজন, তা বহন করার ক্ষমতা পরিবারের নেই।

শুধু বুয়েটে নয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও খুলনা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ভর্তি পরীক্ষাতেও উত্তীর্ণ হয়েছে দীপ্র। কুয়েটে মেধাতালিকায় ৬৯৮ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটে মেধাতালিকায় ৫১৬তম হয়েছেন তিনি।

প্রদীপ বিশ্বাস বলেন, ‘আগে দিনমজুরের কাজের ফাঁকে ভ্যান চালিয়ে সংসার চলত। ভ্যান নষ্ট হওয়ায় এখন কুলি-মজুরের কাজ করি। ছেলেকে ঢাকায় পড়ানোর মতো সামর্থ্য আমার নেই।’ সন্তানের লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার জন্য সমাজের বিত্তবানদের প্রতি আকুতি জানিয়েছেন তিনি।

দীপ্র বিশ্বাসকে সহায়তা করতে চাইলে :
বিকাশ নম্বর-০১৯৫৫৭৬৮৩৩৪

বিভাগ:
শিক্ষা

Comments are closed.